শ্রীপুরে ভূল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু, চিকিৎসক সহ কর্তৃপক্ষ পলাতক

 গাজীপুর (শ্রীপুর) প্রতিনিধি, ইসমাইল খন্দকার, ০৩ জুন, ২০১৯ (বিডি ক্রাইম নিউজ ২৪) : গাজীপুরের শ্রীপুরের বরমী বাজারের ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক হসপিটালে ভূল চিকিৎসায় প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (২জুন) সন্ধ্যায় বরমী ইউনিয়নের ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক এন্ড হসপিটালে প্রসূতি নারীর মৃত্যু হয়। নিহত গৃহবধু সাবিনা (৩৪) বরমী ইউনিয়নের সোহাদিয়া গ্রামের আব্দুস সাহিদের স্ত্রী। তার স্বামী আব্দুস সাহিদ বরমী বাজারের পুস্তক ব্যবসায়ী।
এ ঘটনায় চিকিৎসকের অবহেলার অভিযোগ করে গতরাত থেকেই স্থানীয় এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেন। পরে সোমবার (৩ জুন) সকালে শ্রীপুর থানা পুলিশ গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। এ ঘটনার পর থেকেই হাসপাতাল তালাবদ্ধ করে চিকিৎসক সহ কর্তৃপক্ষ পালিয়ে গেছেন। ইতিপূর্বেও এই হাসপাতালে চিকিৎসকদের ভূল চিকিৎসায় একাধিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত চিকিৎসক মুশফিকুর রহমান পলাশ হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সে বরমীর পাঠানটেক গ্রামের মহিদুর রহমানের ছেলে।
সাবিনার স্বামী শাহিদ সাংবাদিকদের জানান, ২ জুন সোমবার বেলা ১২ টার দিকে ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক এন্ড হসপিটালে স্ত্রীকে শারিরীক পরীক্ষা করানোর জন্য নিয়ে গেলে পরীক্ষা শেষে হাসপাতালের পরিচালক ডা. মুশফিকুর রহমান পলাশ জানান, আজকের মধ্যে এই রোগীর সিজারিয়ান অপারেশন না করলে মা ও শিশু দুজনেরই জীবনের ঝুঁকি রয়েছে। তাই আমি ডাক্তারের কথায় অপারেশনে রাজি হই। বিকেল ৫ টার দিকে ওই ক্লিনিকের পরিচালক ডা. পলাশ সিজারিয়ান অস্ত্রোপচার করলে এক ছেলে সন্তানের জন্ম দেন তিনি।
অস্ত্রোপচারের পর-ছেলে সম্পূর্ণ সুস্থ থাকলেও মায়ের অবস্থা আশংকা জনক। সন্ধ্যায় দিকে ক্লিনিক থেকে ডাক্তার ফোন করে বলেন তার স্ত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। শাহিদ অভিযোগ করে আরও বলেন, আমি ক্লিনিকে আসার আগেই তাড়াহুড়ো করে অ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে রওনা হয় ডা. পলাশ । পথিমধ্যে আমার স্ত্রী মারা যান। ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক এন্ড হসপিটালের পরিচালক মুশফিকুর রহমান পলাশকে ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।
শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শহিদ তাজ উদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ বিষয়ে গাজীপুরের সিভিল সার্জন মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, চিকিৎসকের ভুলে যদি রোগী মারা গিয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যেই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে বিষয়টির খোঁজ নেয়ার জন্য ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *